Logo
নোটিশ ::
আপনার যেকোনো সৃজনশীল লেখা পাঠিয়ে দিন আমাদের ঠিকানায়।আমাদের ইমেইল: hello.atharb@gmail.com

জেলা গণগ্রন্থাগারের বিষণ্ণতা :: রিয়াজ উদ্দিন

অঙ্কন ডেস্ক / ১১২ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

বৈশ্বিক মহামারী-এর কারণে অনেক দিন বন্ধ ছিল  সুনামগঞ্জ-এর জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগার। দীর্ঘ বিরতির পর মানুষের জ্ঞান আহরণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে গণগ্রন্থাগারের দরজা । গ্রন্থাগার ভেবেছিল দীর্ঘ বিরতিতে হয়তো অসংখ্য মানুষ তার জন্য অধীর আগ্রহে আছে, তাকে উন্মুক্ত করার পর মানুষের উপচে পড়া ভীড় হবে কিন্তু গুটিকয়েক মানুষ ব্যতীত তার কাছে কেউ আসলো না। সে আশাহত হলো। এই নিয়ে সে বিষণ্ণ। উপরিউক্ত বিষয়টি নিয়ে আলোচানার জন্য সে তার দুই বন্ধু শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাবলিক লাইব্রেরি আর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরিকে আমন্ত্রণ জানালো। তারা তিন বন্ধু মিলিত হলো সুরমা নদীর পাড়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য।
জগৎজ্যোতি লাইব্রেরিঃ জেলা গ্রন্থাগার, তোমায় এতো বিষণ্ণ লাগছে কেন? তোমায় মনমরা দেখাচ্ছে কেন?
জেলা গ্রন্থাগারঃ কি আর বলবো দুঃখের কথা! মহামারির কারণে দীর্ঘ বিরতির পর উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে আমার দরজা। ভেবেছিলাম হয়তো আমার নিকটে থাকা শত-সহস্র বই থেকে জ্ঞান অন্বেষণ করতে বহু মানুষ আসবে আমার নিকট কিন্তু তা আর হলো না। মানুষের তেমন আগ্রহের বহিঃপ্রকাশ দেখলাম না। সারাদিনে অল্পসংখ্যক লোক আসে অল্প সময় পরে চলে যায়।
জগৎজ্যোতি লাইব্রেরিঃ দুঃখ পেয়ে লাভ নাই। তোমার দরজা তো অনেক দিন পরে খুলেছ কিন্তু আমার দরজা তো সব সময়েই খোলা রেখেছি। তারপরও তো লোকজন পড়তে আসে না। যে কয়জন আসে তা সংখ্যায় অনেক কম। অল্প কয়েকজন যারা আসে তাদের মধ্যে থেকেও অধিকাংশ লোকজন বাহির থেকে mp3 নিয়ে এসে বসে বসে বিসিএস প্রস্তুতি নেয়। আর ঐদিকে আমার বইগুলো আমার কাছে প্রতিনিয়ত অভিযোগ দেয় কেন তার সাথে কেউ প্রেম_ভালোবাসা করতে আসে না?  কেন তার সাথে সময় কাটায় না? কেন মানুষ তার থেকে প্রতিনিয়ত দূরে সরে যাচ্ছে? কেন মানুষ তার থেকে জ্ঞান অন্বেষণ করছে না?
জেলা গ্রন্থাগারঃ দোস্ত, শুনলাম বাংলাদেশের সবচেয়ে সমৃদ্ধ লাইব্রেরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রেও নাকি একই অবস্থা। অধিকাংশ শিক্ষার্থী নাকি জ্ঞান অন্বেষণ থেকে সরে গিয়ে বিসিএস অন্বেষণ করতে ব্যস্থ।
ভ্রাম্যামান লাইব্রেরিঃ বিসিএস বা অনান্য চাকরির প্রস্তুতি নেওয়া দোষের কিছু না। দেকার্তে বলেছেন ” একটি ভালো বই পড়া মানে গত শতাব্দীর সেরা মানুষদের সঙ্গে কথা বলা”। কিন্তু  যখন স্বল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী প্রকৃত পক্ষে জ্ঞান আহরণ করতে চায়,শতাব্দীর সেরা মানুষদের সঙ্গে কথা বলতে চায় অপরদিকে  দুই-তৃতীয়াংশেরও বেশি শিক্ষার্থী শুরু থেকেই চাকরির প্রস্তুতি নেয়া শুরু করে,জ্ঞান আহরণের কোন তৃষ্ণা তাদের লাগেনা তখন বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ভাবা উচিত।
জেলা গ্রন্থাগারঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তনে বাংলার গভর্নর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রবার্ট বুলওয়ার লিটন তাঁর সমাবর্তন ভাষণে বলেছিলেন ” বিশ্ববিদ্যালয় একটি জ্ঞান অর্জনের স্থান, শুধু চাকরিতে যোগ্যতা অর্জনের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নয় “। কিন্তু আজকাল বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এমনকি  প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও নাকি বিসিএসে নিয়োগপ্রাপ্তদের সংবর্ধনা দেওয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। বিষয়টি অনেক উদ্বেগজনক।
ভ্রাম্যমান লাইব্রেরিঃ তোমরা দু’জন তো জায়গায় দাড়িয়ে থেকে মানুষকে আহ্বান করো জ্ঞান অন্বেষণ করতে, তোমাদের কাছে থাকা অজস্র বই থেকে আলো নিয়ে আলোকিত মানুষ হতে কিন্তু আমি তো মানুষের কাছে গিয়ে তাকে আহ্বান করি, বিনা টাকায় তাদেরকে বই দিতে চাই কিন্তু তারা কেন জানি আগ্রহী না। আমার কাছে আসতে তাদের কেন এত অনীহা আমার বুঝে আসে না। আমি অনেক সময় পথিমধ্যে দেখতে পাই একটু কম মূল্যে কোন পণ্য বিক্রি করলে তাকে ঘিরে রাখে অসংখ্য মানুষ। কিন্তু আমি বিনামূল্যে তাদের মহামূল্যবান জিনিস দিচ্ছি তবুও তারা আসে না। অল্প কিছু মানুষ আসে।
জগৎজ্যোতি লাইব্রেরিঃ মার্ক টোয়েইন বলেছেন ” বই পড়ার অভ্যাস নেই আর পড়তে জানে না এমন লোকের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই । “
জেলা গ্রন্থাগারঃ হুম, ঠিক বলেছো। আমাদের দেশকে একটি উন্নত, সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হলে প্রয়োজন আলোকিত মানুষের।আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে বইয়ের ভূমিকাই মূখ্য। তাই তো ডক্টর মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেছেন “জীবনে তিনটি জিনিসের প্রয়োজন বই,বই
এবং বই “
জগৎজ্যোতি লাইব্রেরিঃ আজ তাহলে আসি। অন্য কোনদিন আবার দেখা হবে, কথা হবে। ভাল থেকো, সুস্থ থেকো।
  • লেখক: রিয়াজ উদ্দিন, শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com