Logo
নোটিশ ::
আপনার যেকোনো সৃজনশীল লেখা পাঠিয়ে দিন আমাদের ঠিকানায়।আমাদের ইমেইল: hello.atharb@gmail.com

কবিতাঃ প্রিয়তমা || কুশ সাহা

অঙ্কন ডেস্ক / ২৭ বার
আপডেট সময় : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০

প্রভাতে মেলিছে দেখো তোমারই মায়া,

গগণে সাজিছে দেখো তোমারই ছায়া।
চারিদিকে করিছে ওগো কাকলী কুঞ্জন,
বাতাসে বইছে ওগো তোমারই গুঞ্জন।
নিস্তব্ধ ওগো আজ এই শহরতলী,
তোমা পাণে আত্মহারা হয়েছে অলিগলি।
মোর মনও প্রাণ,
হারাইয়েছে সুবাসিত ঘ্রাণ।
তোমার গন্ধে হইয়াছে মাতাল,
প্রাণ থাকিতেও সে আজ নিষ্প্রাণ।
বিকশিত রূপ তোমার বিকশিত হৃদয়,
জাগ্রত করিছে মোরে করিছে প্রেম উদয়।
তুমি ছাড়া আমি শূন্যে মাখামাখি,
তোমারে আমি হৃদয়ের ঠিক আড়ালেই রাখি।
বিষন্নতা যেন কভু পায়না তোমায় ছুঁতে,
যদিও প্রয়াস করে তবে হবে তার আমার প্রাণ নিতে।
তোমার প্রেমে এ প্রাণ মোর,
হইয়াছে তুচ্ছ হইয়াছে কঠোর।
ভালোবেসে তুমি মোরে বলোনি ভালোবাসো,
তবে কেন মৃদুস্বরে আমায় দেখে হাসো?
হাসিতে যায় প্রাণ,
দুপুর হারায় গান।
অবসরে ভাবনায় দেখা দাও বেলকনিতে,
আমি আপন মনে পাগলের ন্যায় শূন্যে ভাসি কবিতার কলিতে।
দুপুর কাটে নিঃসঙ্গতায়,
পাইনা আমি সেথায় তোমায়।
অবেলা বকুল ঝড়ে পড়ে মনে,
তোমারেই ভাবি আমি তবুও গোপনে।
গোপনে আসে মধুর বিকেল,
ফোটে কত আশা সূদুর নিখিল।
তোমার জন্য চেয়ে থাকে চাতক এ চোখ,
তোমার আশাতেই জানায় সে মনের কত ক্ষোভ।
বিরহে কাটে বিকেল আমার,
খুঁজিয়া আমি পাইনে তোমার।
গোধূলি আসে অকালবোধনে,
জাগায় না তোমায় তবুও সম্ভাষণে।
ব্যথা ভরা মনে ব্যথায় রয়ে যায়,
কোথাও পাইনি আমি তোমার বুকে ঠাঁই।
গোধূলি ছাড়িয়া যামিনী ঘনিল,
আকাশের নক্ষত্র জ্বলিয়া উঠিল।
নক্ষত্র মাঝারে আমি তোমারেই খুজি,
চাঁদ দেখে চমকে উঠি এই বুঝি তুমি!
আমার প্রাণে জাগে তখন তেষ্টা,
আমি অধীরে করে যায় তাহা মিটাইবার চেষ্টা।
যামিনি গভীর হয় অতন্দ্রে কাটে তাহা,
তোমারেই ভালোবাসি আমি দিয়ে আমার আছে যাহা।
তোমারে খুজিয়া কাটে অতন্দ্র যামিনী,
আশায় থাকে প্রাণ তুমি হবে বুঝি ভোরের কামিনী।
ভোরের পাখি ডাকে হিজলের তলে,
দোলনচাঁপা দোলে শিশিরের ঢলে।
আমি ছুটিয়া যায় দেখিতে সে ঢল,
শিশিরও কি হয়েছে উতলা আমার মতন?
উদাস মনে চাহিয়া দেখি,
বুঝিতে সক্ষম হয় না আমার অবুঝ এই আখি।
সেথায় কী আছো তুমি?
রয়েছে কী তোমার প্রতীক!
তবে কেন আমি ছুটিয়া গেলাম সাজিয়া অনন্ত পথিক?
পথের ধারে হাটিতে হাটিতে মেঘ জমিল আকাশে,
রবির আলো খুব সহজেই মিশে গেল নিমিষেই।
মেঘের আড়ালে খুজেছি তোমাকে,
পাইনি তোমার দেখা।
তুমি কী সেই অলৌকিক শক্তি,
হৃদয় বিলম্ব রেখা!
মেঘের আড়ালে বলিছে রবির হাসি,
তোমারেই যেন শতজন্মে শতবার আমি এভাবেই ভালোবাসি!
ভালোবাসি বলিলেই ভালোবাসা হয়না,
হৃদয় দেখিতে চায় তব নামে আয়না।
আয়নাতে ভাসবে যখন তোমার ওই মুখ,
হাসবে আমার মন পাবে পরম সুখ।
সুখ যদি নাই দাও তুমি দিও শুধু ব্যথা,
তাহাতেই ফুটবে আমার মনের কবি কথা।
কথার প্রেমে মজিবে তুমি মজিবে তোমার সত্তা,
প্রেমের ঘাটে নগ্ন হবে আমাদের প্রেমী আত্মা।
প্রেম পাবে আমার দেহ প্রেমে থাকবে নিষ্ঠতা,
তাহাতে মাতাল হবে আমাদের আত্মার ঘনিষ্ঠতা।
তোমার আশায় দেবদাস আমি এ কেমন নেশা?
পথভুলেও তোমার পথে এ নাবিক হারায়েছে দিশা।
তুমি হে নীরা প্রেমের মুকুল,
তোমাতে ছাড়িবো আমি আমার স্ব কূল।
চোখের চাহনি তোমার দেবীময় চাওয়া,
তোমাতেই বুঝি আমার নূতন হারিয়ে যাওয়া।
হারিয়ে আমি পেয়েছি মোরে,
হানিছ প্রেমের শূল মম বক্ষে স্ব জোড়ে।
এ জন্মে কোনোদিন হইবো কপোত-কপোতী,
আমি হে কাঙাল তোমার কন্ঠস্বরের পূজারী।
এ প্রাণ চাহিছে দেখিতে তোমায় শয়নে স্বপনে,
কীভাবে দেখিবো বলো তুমি রয়েছো নয়নে।
কবি বাধিবে ঘর আপন নবনীড়ে,
কাব্য খুঁজিবে সে তোমার অন্তরে।
দেবী তুমি দেবী হেতা মর্তবাসিনী,
তোমা সাথে রটিত হবে তব প্রেমকাহিনী।
 এ কাহিনী রটিত হবে স্বর্গ মর্ত পাতাল,
শুনিয়া যে কোনো যুবক যুবতি হইবে এতে মাতাল।
তুমি হবে মহীয়সী নারী প্রেমের বিনোদিনী,
বিনোদ তোমার সঙ্গে রবে হয়ে গো প্রাণ স্বজনী।
তব প্রেমে ক্রুদ্ধ হয়ে স্বর্গ দেবতা দেবে আমায় মৃত্যুদন্ড,
মম দন্ডে তোমার কোমল হৃদয় হবে খন্ড বিখন্ড।
স্বর্গ নন্দে প্রেম হবে নন্দিত,
তুমি হবে দেবীকলংকে কলংকিত।
তব প্রেম জানিবে সহস্র নূতন প্রজন্ম,
বলিবে সবাই আকূল আবেদনে আমি তোমারে ভালোবাসিয়াছিলাম আজন্ম!


এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com